আজকের সকল শিরোনাম
ফটোগ্যালারি
বুধবার, ঢাকা ॥ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ ॥ ২৮ মাঘ ১৪২২ ॥ ৩০ রবিউস সানি ১৪৩৭
সংবাদ শিরোনাম :
বসন্তের বাহারি সাজ
Published : Wednesday, 10 February, 2016 at 12:00 AM, Update: 10.02.2016 12:30:38 AM
বসন্তের বাহারি সাজএখন সময়টা যেহেতু শীতের প্রায় শেষের দিকে তাই ত্বক বেশিরভাগ সময় খুব রুক্ষ ও প্রাণহীন হয়ে যায়। তাই এ সময় ত্বকের একটু অতিরিক্ত যতœ নেওয়া উচিত। বিশেষ করে মেকআপের ক্ষেত্রে একটু খেয়াল রাখা উচিত। কারণ মেকআপ বেশি ভারী  অথবা বেশি হালকা হয়ে গেলে সাজটাই অন্যরকম হয়ে যেতে পারে। এ জন্য মুখে মেকআপের বেইছটা অনেক ভালো করে লাগাতে হবে। প্রথমে ভালো কোনো ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর মুখ মশ্চারাইজারযুক্ত ফাউন্ডেশন লাগিয়ে আঙুল দিয়ে হালকা করে ঘষে সম্পূর্ণ মুখে ও গলায় ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। ফাউন্ডেশনের ক্ষেত্রে ত্বকের ধরন রঙ অনুযায়ী পছন্দ করতে হবে। ত্বক উজ্জ্বল ফর্সা হলে হালকা শেড, উজ্জ্বল শ্যামলা কালো ত্বকের জন্য একটু গাঢ় শেডের ফাউন্ডেশন অনেক ভালো হয়। মুখে বেইস মেকআপটা লাগানোর পর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে যাতে মেকআপটা ত্বকে ঠিকমতো বসে যায়। এরপর মোটা ব্রাশ দিয়ে মুখে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে কম্প্যাক্ট পাউডার লাগাতে হবে। তবে কারও মুখ বেশি ঘামলে কম্প্যাক্টের পরিবর্তে প্যানকেক লাগাতে পারেন। এ জন্য পাফটাকে পানিতে হালকা করে ভিজিয়ে ত্বকের টোনের সঙ্গে মিলিয়ে মুখে প্যানকেক লাগাতে হবে। এরপর আপনি মেকআপটা আরও বেশি হাইলাইট করতে চাইলে হালকা করে ব্লাশ অন লাগিয়ে নিতে পারেন। তবে ফাল্গুনের দিন যেহেতু দিনের বেলাই বের হওয়া হয় সে ক্ষেত্রে ব্রাশ অন না লাগানোই ভালো।
এবার চোখের ক্ষেত্রে শাড়ির সঙ্গে সাজটা একটু ভারী হলেই বেশি ভালো হয়। প্রথমে হালকা শ্যাডো দিয়ে চোখের পাতার ভাঁজ পর্যন্ত বাইরে থেকে ভেতর দিকে টেনে নিন। হলুদ শাড়ির সঙ্গে লাল, হালকা সবুজ, সোনালি স্মোকি করতে চাইলে কালো পার্পেল এই ধরনের রঙগুলো বেশি মানাবে। এছাড়া অন্য রঙের শাড়ি হলে ব্লাউজের সঙ্গে মিলিয়ে রঙ নির্বাচন করলে ভালো লাগবে। এরপর যেই শেডের শ্যাডো ব্যবহার করা হয়েছে তার চেয়ে একটু গাঢ় শেডের শ্যাডো দিয়ে চোখের ওপরের পাতায় ও চিকন করে চোখের নিচের পাতায় লাগিয়ে নিতে হবে। এরপর কাজল দিয়ে চোখের ওপরে ও নিচে এঁকে নিতে হবে। চোখের সাজের ক্ষেত্রে মাশকারাটা একটু ভারী করে লাগালে চোখ দুটো ভারী দেখাবে। মাশকারা লাগানোর সময় নিচ থেকে ওপরের দিকে একবারে কার্ল করে লাগিয়ে নিন। এরপর ঠোঁটে একটু হালকা রঙের পছন্দসই লিপগ্লস লাগিয়ে নিতে হবে।
* চুলের দোলায়
অনেকেই চুল খোলা রখতে পছন্দ করেন। এ ক্ষেত্রে একপাশে ক্লিপ আটকে তার ওপর ফুল গুঁজে দিতে পারেন। অথবা কানের পাশ দিয়ে হালকাভাবে গুঁজে দিতে পারেন কয়েকটি ফুল। ফুল বড় হলে একটি, ছোট হলে তিন-চারটে।
হালকা অথবা আঁটসাঁট করে খোঁপাও করে নিতে পারেন। খোঁপার চারপাশ দিয়ে মালা না পেঁচিয়ে একটু অন্যভাবেও পরতে পারেন। খোঁপার চারপাশ দিয়ে পরপর ছোট ফুল গেঁথে নিন অথবা একটি বড় ফুল খোঁপা ও কানের মধ্যে আটকে নিন। বেণিতে ফুল আটকে তৈরি করতে পারেন ভিন্ন লুক। সামনে দুপাশ থেকে চুল টুইস্ট করে টেনে  পেছনে নিয়ে আটকে নিন ক্লিপ দিয়ে। এবার সাধারণভাবে বেণি করে মাঝে মধ্যে ফুল আটকে নিতে পারেন।
হলুদ গাঁদা মন কাড়বেই। কিন্তু অন্য ফুলগুলোও নজর কাড়তে কম যায় না। মেরুন, হলুদ, সাদা, নিল রঙের চন্দ্রমল্লিকা, ক্যালানডুলা ফুলগুলোর চাহিদাও এবার অনেক বেশি। এছাড়া হলুদ লাল রঙের চায়নিজ চেরিও তাল মেলাচ্ছে অন্যদের সঙ্গে। বসন্ত উৎসবে আরও পাবেন গ্ল্যাডিওলাস, রজনীগন্ধা জারবারা। এছাড়া গাঁদা, গোলাপ আর অর্কিড তো থাকছেই।
ফাল্গুনের দিন কাচের চুড়ি না পরলে সাজটা যেন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। শাড়ির রঙের সঙ্গে কন্ট্রাস্ট করে হাতভর্তি পরে নিতে পারেন রঙবেরঙের চুড়ি আর তার সঙ্গে কপালে একটি লাল টিপ। কারণ টিপ ছাড়া বাঙালি নারীর সৌন্দর্য যেন কেমন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। এবার আপনি বাইরে যাওয়ার জন্য সম্পূর্ণভাবে তৈরি। 


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত