আজকের সকল শিরোনাম
ফটোগ্যালারি
বুধবার, ঢাকা ॥ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ ॥ ২৮ মাঘ ১৪২২ ॥ ৩০ রবিউস সানি ১৪৩৭
সংবাদ শিরোনাম :
সহিংসতার মোকাবেলায় ‘গুলতি’      ১০ পৌরসভার নির্বাচন ২০ মার্চ       ‘গ্যাসের মওজুদ বৃদ্ধি করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার’      সাগর-রুনির হত্যার রহস্য শিগগিরই উদঘাটন হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী       সরকার রাষ্ট্রপতির বক্তব্যের উল্টো করছে: রিজভী      সৈকতের অর্ধলক্ষ ঝাউগাছ নিধন      নবগঠিত ছাত্রদলের ধাওয়া: বিদ্রোহী ছাত্রদলের পলায়ন      
সহিংসতার মোকাবেলায় ‘গুলতি’
Published : Wednesday, 10 February, 2016 at 8:37 PM, Update: 10.02.2016 8:42:28 PM
অনলাইন ডেস্ক
সহিংসতার মোকাবেলায় ‘গুলতি’একসময় দাঙ্গা-হাঙ্গামায় শত্রুর মোকাবিলায় অন্যতম অস্ত্র ছিল তীর-ধনুক আর গুলতি। বর্তমান আধুনিক যুগেও গ্রামাঞ্চলে ও উপজাতিদের মধ্যে প্রচলিত আছে এসব সনাতনি অস্ত্র। তবে রাষ্ট্রযন্ত্রের গুরুত্বপূর্ণ অংশ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বন্দুক ফেলে এই অস্ত্র আবার হাতে তুলে নিচ্ছে। আর সেটি ঘটতে যাচ্ছে ভারতের হরিয়ানা রাজ্যে।

ওই রাজ্যের পুলিশ গুলতি ছুড়ে বিক্ষোভকারীদের সহিংসতার মোকাবেলা করবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।  আর তাই গুলতি মারার প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে পুলিশকে।

বুধবার হরিয়ানা রাজ্যের পুলিশ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসি অনলাইনে এমনই খবর প্রকাশিত হয়েছে।

হরিয়ানার জিন্দ জেলার পুলিশপ্রধান অভিষেক জরওয়াল বলেন, তারা অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানোর পর গুলতি ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তারা যেসব গুলতি ব্যবহার করবেন সেগুলো বিশেষভাবে তৈরি এবং যথেষ্ট নিরাপদ। বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে মারাত্মক অস্ত্র ব্যবহার বন্ধ করাই তাদের উদ্দেশ্য বলে জানান তিনি।

ওই পুলিশ-প্রধান বলেন, আমাদের অফিসারদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে কেবল শেষ অস্ত্র হিসেবে বন্দুক ব্যবহার করতে। এর আগে পর্যন্ত তারা কাঁদানে গ্যাস ও গুলতি ব্যবহার করে বিক্ষোভ দমানোর চেষ্টা করবেন। গুলতি দিয়ে ছোঁড়া হবে মরিচের গুঁড়ো এবং মার্বেল।

মার্বেল ও মরিচের গুঁড়ো বড় কোনো ক্ষতি করবে না, কিন্তু বিক্ষোভকারীদের হটিয়ে দিতে এটি বেশ কার্যকর হবে বলে মনে করেন অভিষেক জরওয়াল।


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত